মনের মধ্যে যে ৮ ইচ্ছার কথা গোপন রাখেন নারীরা!

প্রত্যেক মানুষের কিছু গোপন ইচ্ছা, চাওয়া–পাওয়া থাকে। তবে এগুলো প্রকাশ করে না। বিশেষ করে মেয়েরা এই কাজে ওস্তাদ। কিছু কিছু জিনিস আছে, যেগুলো একজন নারী সবার অগোচরে চাহিদা করেন কিন্তু মুখে সম্পূর্ণ বিপরীত কথা বলেন। চলুন, জেনে নিই নারীদের এমন ৮টি গোপন ইচ্ছার কথা, যেগুলো তাঁরা প্রকাশ করেন না কাউকে কিন্তু মনে মনে খুব চান। চলুন জেনে নিই নারীদের ৮টি ইচ্ছার কথা

ভালোলাগা: নারীরা সাধারণত যদি কাউকে ভালোবাসেন তবে তা কখনোই মুখে স্বীকার করতে চান না। তবে অনেক ধরনের অস্পষ্ট কথা দিয়ে আপনাকে তা বোঝানোর চেষ্টা করবেন। সুন্দরী: প্রত্যেক নারীই চান বান্ধবীর থেকে তাকে সবচেয়ে সুন্দরী ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠতে।তবে হ্যাঁ, অবশ্যই মনে মনে।

গায়ের রং ফর্সা: জাতের মেয়ে কালো ভালো, নদীর পানি ঘোলা ভালো। কিন্তু অধিকাংশ নারীরা চান গা ফর্সা রঙের অধিকারী হতে। কিন্তু মুখে স্বীকার করতে চান না। ওজন: অনেক নারীকে বলতে শোনা যায় ওজন নিয়ে মাথা ঘামাই না।কিন্তু মনে মনে তিনি ঠিকই চান স্লিম থাকতে। সুন্দর ফিগারের অধিকারী হতে।

বয়স: নারীরা সব সময় বয়স লুকাতে পছন্দ করেন।পু'রুষরা বয়স নিয়ে মাথা না ঘামালেও প্রায় প্রত্যেক নারী এটাই চান যে তার চেহারায় বয়সের ছাপ কখনো না পড়ুক। প্রতিষ্ঠিত স্বামী: প্রত্যেক নারীই এমন স্বামী বা বয়ফ্রেন্ড কামনা করেন, যাকে সবার সামনে গর্বভরে পরিচয় করে দেয়া যায়।কিন্তু কখনোই মুখে স্বীকার করবেন না।

ঈর্ষাকাতর: নারীরা বরাবরই ঈর্ষাপরায়ণ।অন্য মেয়েদের জীবনের অর্জন দেখে মনে মনে সেটা চান প্রায় সব নারীই। স্ত্রী হবেন স্বামীর মনের রানী: প্রত্যেক নারী চান পছন্দের পু'রুষটি তার সব কথা শুনুক, তাকে ছাড়া কিছু চিন্তা করতে না পারুক।তার পৃথিবীতে সে ছাড়া অন্য কেউ তাকবে না।

বরকে রেখে ‘কাজী’র সঙ্গে পালিয়ে গেল নববধূ

বিয়ের পড়ানোর দায়িত্ব থাকে কাজী বা পুরোহিত। কিন্তু সেই পুরোহিতের হাত ধরে পালিয়ে গেছেন এক নববধূ। বিয়ের পর গহনা ও টাকা নিয়ে বরকে রেখে পুরোহিতের সঙ্গে কনের পালিয়ে যাওয়ার এ ঘটনা ঘটেছে ভারতের মধ্যপ্রদেশের সিরঞ্জ শহর লাগোয়া আসাত গ্রামে।

যে পুরোহিতের সঙ্গে ওই নববধূ ঘর ছেড়েছেন, গত ৭ মে তিনিই ওই তরুণীর বিয়ে পড়িয়েছিলেন।

ওই পুরোহিতের নাম বিনোদ মহারাজ। তিনি আসাত গ্রামের মন্দিরের পুরোহিত। গ্রামের বাসিন্দারা শুভ কোনো অনুষ্ঠানের জন্য বিনোদেরই দ্বারস্থ হতেন। গত ৭ মে ওই তরুণীর বিয়ে দেন তিনি। বিয়ে করে শ্বশুর বাড়ি যাওয়ার কয়েক দিন পর ওই নববধূ এসেছিলেন বাবার বাড়িতে।

গত ২৩ মে ওই গ্রামের আরো একজনের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। সেই বিয়ে দেয়ার কথা ছিল বিনোদের। কিন্তু বিয়ের সময় এগিয়ে এলেও পুরোহিতের পাত্তা নেই। সারা গ্রাম হন্যে হয়ে খুঁজেও পাওয়া যায়নি তাকে। পাশাপাশি দুই সপ্তাহ আগে বিয়ে হওয়া ওই নববধূকেও দেখা যাচ্ছিল না। তখনই শুরু হয় খোঁজ। তারপর পুরোহিতের সঙ্গে সদ্য বিয়ে হওয়া ওই তরুণীর পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি সামনে আসে।

কলকাতার বাংলা দৈনিক আনন্দবাজার বলছে, পরে ওই তরুণীর বাড়ির লোকজন থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। ওই তরুণীর সঙ্গে বিনোদের গত দু’বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক ছিল বলে বেরিয়ে আসে তথ্য। ওই পুরোহিত বিবাহিত এবং তার দু’টি সন্তানও রয়েছে।

এ ঘটনার পর থেকে পুরোহিতের বাড়ি তালা বন্ধ। ওই নববধূ বিয়ের গহনা ও ৩০ হাজার টাকা নগদ নিয়ে পালিয়েছেন বলেও অভিযোগ দায়ের হয়েছে।

Check Also

চাকরি ছেড়ে করছেন মাশরুমের চাষ, বার্ষিক আয় ৫ কোটি টাকা

আমরা সবাই লকডাউনের সময় দেখেছি, আমাদের রাজ্য ছেড়ে অন্য রাজ্যে গিয়ে চাকরি পেতে কতটা সমস্যার …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *