প্রেম ও দে’হব্যবসা নিয়ে বি’তর্কে নায়িকা শ্রীলেখা

কলকাতার অভিনেত্রী শ্রীলেখা মিত্র মন্তব্য করেছিলেন টলিউডেও তারকারা স্বজনপ্রীতি করেন, প্রেমপ্রীতি করেন। অনেক তারকাই সম্পর্কে জড়িয়ে নিজেদের পছন্দমতো ইন্ডাস্ট্রি চালান। তিনি প্রসেনজিৎ-ঋতুপর্ণাসহ আরও অনেকের নামও নিয়েছেন। তার সেই কথার প্রেক্ষিতে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন অনেকেই। তাদের মধ্যে একজন স্বস্তিকা মুখার্জি। সম্প্রতি এক সংবাদমাধ্যমে ‘সুই’সাইড আজকাল একটি

ফ্যাশন হয়ে গিয়েছে’ গোছের মন্তব্য দিয়ে স্বস্তিকার নামে সংবাদ প্রকাশ করে। সেই খবর প্রকাশ্যে আসতেই স্বস্তিকার বিরুদ্ধে সমালোচনায় সরব হন নেটিজেনদের একাংশ! আর ঠিক সেই প্রতিবেদনটিই শ্রীলেখা নিজের ফেসবুকে পোস্ট করে লেখেন ‘বাহ! এরপরই দুই অভিনেত্রীর বি’তর্ক তুঙ্গে। এদিকে সংশ্লিষ্ট সংবাদমাধ্যমে স্বস্তিকার নামে যে খবর

প্রকাশিত হয়েছে, তা ভিত্তিহীন বলে দাবি করেছেন স্বস্তিকা নিজে। প্রমাণস্বরূপ ফেসবুকে তিনি গতকাল একটি পোস্টও করেছেন যে, ‘সত্যি খবরের থেকে আজকাল বোধহয় সবাই গুজবেই বেশি কান দেন! সুশান্তের

মৃ’ত্যুতে আমি ব্যক্তিগতভাবে শো’কাহত। আর সেখানে আমার নামেই কিনা এমন খবর ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে?’ একের পর সমালোচনার পর নেটদুনিয়ায় এই ভুয়া খবরের বিরুদ্ধে মুখ খুলতে বাধ্য হয়েছেন তিনি। স্বস্তিকার কথায়,

‘শেয়ার করার আগে কিংবা কাউকে দো’ষারোপ করার আগে খবরের সত্যতা যাচাই করা উচিত।’ এ প্রসঙ্গে শ্রীলেখার উত্তর, অনেক কিছুরই তো আজকাল ভু’ল ব্যখ্যা চলছে। তার মন্তব্যের যেমন ভু’ল ব্যখ্যা করেছেন স্বস্তিকা।

অভিনেত্রীর কথায়, ইন্ডাস্ট্রির প্রেমের প্রসঙ্গ তুলেছিলেন তিনি, কিন্তু স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায় সেই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে ‘স্লা’ট’ শব্দ ব্যবহার করেছেন। তাহলে প্রেম আর দেহ ব্যবসা কি এক? প্রশ্ন তুলেছেন শ্রীলেখা মিত্র।

স্ত্রী’র অন্যত্র বিয়ে হলেও মৃত স্বামীর উত্তরাধিকার পাবে কী? জেনে নিন,,,

ইসলামী শরিয়ত মতে নারী ও পু'রুষ কোরআনে বর্ণিত অংশানুযায়ী প্রত্যেকে নিকটাত্মীয়ের সম্পদের অধিকারী হবে। পবিত্র কোরআনে ইরশাদ হয়েছে, ‘মা-বাবা ও নিকটতর আত্মীয়দের পরিত্যক্ত সম্পত্তিতে পু'রুষের অংশ আছে এবং মা-বাবা ও নিকটতর আত্মীয়দের পরিত্যক্ত সম্পত্তিতে নারীরও অংশ আছে। তা অল্পই হোক বা বেশি, এক নির্ধারিত অংশ। (সুরা নিসা, আয়াত : ৭)এই নির্ধারিত অংশ যেন সবাই যথাযথভাবে পায় সে ব্যাপারেও আল্লাহ কঠোর

হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছেন। ইরশাদ হয়েছে, ‘এসব আল্লাহর নির্ধারিত সীমা। যে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের অনুসরণ করবে আল্লাহ তাকে এমন জান্নাতে প্রবেশ করাবেন, যার পাদদেশে নদী প্রবাহিত। সেখানে তারা স্থায়ী হবে এবং এটা মহা সাফল্য। আর যে আল্লাহ ও তাঁর রাসুলের অবাধ্য হবে এবং তাঁর নির্ধারিত সীমাকে

লঙ্ঘন করবে তিনি তাকে জাহান্নামে নিক্ষেপ করবেন। সেখানে সে স্থায়ী হবে এবং তার জন্য রয়েছে লাঞ্ছনাকর শাস্তি। (সুরা নিসা, আয়াত : ১৩-১৪) বহু মুসলিম সম্পদের মোহে পড়ে নিজের আপনজনকে প্রাপ্য অধিকার থেকে বঞ্চিত করে। ইসলামী শরিয়ত মোতাবেক মিরাস বণ্টন করে না। উত্তরাধিকার সম্পত্তি থেকে পু'রুষের তুলনায় নারীরা বেশি বঞ্চিত হয়। মুফতি রশিদ আহমদ (রহ.) নারীদের সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করার প্রধান তিনটি দিক তুলে ধরে তা সরাসরি ইসলামী

শরিয়তের পরিপন্থী ও জুলুম হিসেবে আখ্যা দিয়েছেন। তা হলো—এক. বিধবা নারীকে সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা। বিধবা নারী যদি স্বামীর সন্তানের মা না হয়, তবে তাকে পিতার বাড়িতে পাঠিয়ে দেওয়া হয় এবং তাকে সব ধরনের সম্পদ ও অধিকার থেকে বঞ্চিত করা হয়। বিশেষত স্বামীর মৃত্যুর পর বিধবা যদি অন্যত্র বিবাহ-বন্ধনে আবদ্ধ হয় তাকে মৃত স্বামীর সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা হয়।

দুই. কোনো কোনো অঞ্চলে এই প্রচলন আছে, স্ত্রী স্বামীর বংশের না হলে তাকে স্বামীর পরিত্যক্ত সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করা হয়। এটাও চরম মূর্খতা ও অবিচার। বিধবা চাই স্বামীর বংশের হোক বা অন্য বংশের, দ্বিতীয় বিয়ে করুক বা না করুক সর্বাবস্থায় তার নির্ধারিত অংশ তাকে দিতেই হবে।

তিন. বোনের অংশ না দেওয়া। বোনের বিয়েতে যৌতুক বা উপহার দেওয়ার অজুহাতে বহু পরিবার মেয়ে বা বোনের অংশ দেয় না। অথচ যৌতুক বা উপহার মেয়ে বা বোনকে উত্তরাধিকার সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করে না; বরং যৌতুক দেওয়া ও উত্তরাধিকার থেকে বঞ্চিত করা উভয়টিই অপরাধ। একটি সামাজিক ও রাষ্ট্রীয় অপরাধ আর মিরাস, অন্যটি ইসলামী শরিয়তের দৃষ্টিতে অপরাধ।
তথ্যসূত্র : আহসানুল ফাতাওয়া, খণ্ড-৯

Check Also

যে কারণে উধাও হলো বগুড়ার সেই পুকুরের মাছ-পানি

দীর্ঘ বছরের পুরোনা পুকুর। হঠাৎ কী এমন হলো যে নিমিষেই পানি ও মাছ শূন্য হয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *