Breaking News

কখন চুল আচড়ানো ভালো, ভেজা অবস্থায় নাকি শুকনা অবস্থায়!

রুপচর্চা ও চুলের যত্ন (hair care) নিয়ে আমরা নানা রকম টিপস দিয়ে আসছি। আজ চুলের যত্ন (hair care) নিয়ে কিছু কথা বলবো। আমরা অনেকেই ভেজা চুল আচড়াই। আবার অনেকে চুল শুকিয়ে আচড়াই। কিন্তু জানি না আসলে সঠিক পদ্ধতি কোনটি। সেই সব কথাই আজ আপনাদের জানাবো।

আমরা অনেকেই ভেজা চুল আচড়াই। কারণ আমরা সবাই জানি। ভেজা চুল আচড়ানো (Hair combing), শুকনা চুল আচড়ানোর (Hair combing) চেয়ে সহজ। আবার অনেকেই গোসল করার পরেই ভেজা চুল আঁচড়াই। আসলে কোনভাবে চুল আচড়ানো ভালো, ভেজা অবস্থায় নাকি শুকনা অবস্তায়? এ

যারা ভেজা চুল আচড়ান এটা শুনে আপনার ভালো লাগবে না যে, এর কারনে আপনার চুলের ক্ষতি হচ্ছে। চুল দূর্বল হওয়া, চুলের আগা ফেটে যাওয়া চুল পড়া সহ নানা রকম সমস্যার কারণ হতে পারে এটি।

তাই চুল ধোঁয়ার পর স্বাভাবিক ভাবে ১৫-২০ মিনিট চুল মেলে দিয়ে চুল (hair) শুকিয়ে নিয়ে তারপর আচড়ান। তাহলে আপনার চুল ক্ষতির হাত থেকে অনেকটাই রক্ষা পাবে।
তথ্য সূত্র – ড্রাই স্ক্যাল্প গন ডট কম

প্রতিদিন সকালে ১টি এলাচ এর যত উপকার

খাবার খেতে বসলে মুখে এলাচ চলে গেলে মুখের খাবারটা যেন মাটি হয়ে যায় অনেকের। তবে এই এলাচের গুণাগুণ অনেক। আসুন জেনে নেই প্রতিদিন সকালে মাত্র একটি এলাচ কী’ কী’ উপকারে আসতে পারে।

১) এলাচ এবং আদা সমগোত্রীয়। আদার মতোই পেটের নানা সমস্যা এবং হ’জমের সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে এলাচ অনেক কার্যকরী। বুক জ্বালাপোড়া, বমি ভাব, পেট ফাঁপা, অ্যাসিডিটির হাত থেকে মুক্তি পেতে এলাচ মুখে দিন।
২) দেহের ক্ষতিকর ট’ক্সিন দূর করে দিতে এলাচের জুড়ি নেই। এলাচের ডিউরেটিক উপাদান দেহের ক্ষতিকর ট’ক্সিন পরিষ্কারে সহায়তা করে।

৩) র’ক্তনালীতে র’ক্ত জমে যাওয়ার সমস্যায় ভুগে থাকেন অনেকেই। এলাচের র’ক্ত পাতলা করার দারুণ গুনটি এই সমস্যা থেকে মুক্তি দেবে। প্রতিদিন এলাচ খেলে র’ক্তের ঘনত্ব সঠিক থাকে।
৪) এলাচের ডিউরেটিক উপাদান উচ্চ র’ক্তচাপের সমস্যা কমিয়ে আনতে সক্ষম। দেহের বাড়তি ফ্লুইড দূর করে এলাচ উচ্চ র’ক্তচাপের সমস্যা নিয়ন্ত্রণে আনতে সহায়তা করে।

৫) মুখে খুব বেশি দুর্গন্ধ হয়? একটি এলাচ নিয়ে চুষতে থাকুন। এলাচ মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস করে মুখের দুর্গন্ধ দূর করে।
৬) নিয়মিত এলাচ খাওয়ার অভ্যাস মুখের দুর্গন্ধের পাশাপাশি মাড়ির ইনফেকশন, মুখের ফোঁড়া সহ দাঁত ও মাড়ির নানা সমস্যা থেকে রক্ষা করে।

৭) গবেষণায় দেখা যায় নিয়মিত এলাচ খাওয়ার অভ্যাস ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। এলাচ দেহে ক্যান্সারের কোষ গঠনে বাঁ’ধা প্রদান করে থাকে।
৮) এলাচের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান ত্বকে বয়সের ছাপ, রিংকেল, ফ্রি র্যাহডিকেল ইত্যাদি পড়তে বাঁ’ধা প্রদান করে। এলাচ ত্বকের ক্ষতি পূরণেও বেশ সহায়ক।

Check Also

যারা বাচ্চাকে সাড়ে ৩-৪ বছরে স্কুলে দিবেন ভাবছেন, তাদের জন্য খুবই জরুরী এই পোস্ট

আমাদের দেশের স্কুল মানেই একেবারে সিরিয়াস লেখাপড়া। আর আপনারা এখন খেলার ছলে শিখাচ্ছেন তাই শিখছে।স্কুল …

Leave a Reply

Your email address will not be published.