Breaking News

যারা ধূমপান ছাড়তে পরছেন না, তারা শিখে নিন ধূমপান ছাড়ার সহজ উপায়!

প্রচলিত ও নিয়মিত বদভ্যাস গুলোর মধ্যে যেটি সবচেয়ে মারাত্মক সেটি হলো ধূমপান (Smoking) করা। অসংখ্য ধূমপায়ী আজ ছাড়ি, কাল ছাড়ি করে অনেকটা সময় পার করে দিচ্ছেন কিন্তু এ বাজে অভ্যাস থেকে মুক্তি পাচ্ছেন না কোনভাবেই। কিন্তু এ সত্য অবহেলা করার কোন অবকাশ নেই যে একেকটি সিগারেট আপনাকে মৃত্যুর পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছে শতগুণে।

আজকের ফিচারে আপনাদের এমন কিছু ছোট টিপস জানানো হবে যাতে করে ধীরে ধীরে এ সর্বনাশা পথ থেকে উদ্ধার পেতে পারেন আপনি। মনে রাখবেন, মানুষের জন্য কোন কিছুই অসম্ভব নয়!

হাতের কাছে একটি নোটবুক নিন। একটি পৃষ্ঠার মাঝ বরাবর দাগ কাটুন। একপাশে লিখুন কেন ভালো লাগে আপনার ধূমপান (Smoking) করে এবং অপর পাশে লিখুন এর মন্দ দিকসমূহ। একটু সাহসী বোধ করলে আপনি পরিবারের সদস্য, সঙ্গী, সহকর্মী এবং বন্ধুর মত নিতে পারেন যে তারা আপনার ধূমপান (Smoking) করার বিষয়ে কী মনে করেন। নেতিবাচক দিকগুলো যদি ইতিবাচক দিককে ছাপিয়ে যায় তবে শুরু করুন সিগারেটের সঙ্গে বিচ্ছেদের যাত্রা।

এবার অপর পৃষ্ঠায় লিখুন ধূমপান (Smoking) ছাড়া আপনার জন্য সহজ নয় কেন। কারণগুলো সুন্দর করে লিপিবদ্ধ করুন এবং সেগুলো আপনার জন্য কতোটুকু সম্ভব কিংবা অসম্ভব তা-ও লিখুন। একটি নির্দিষ্ট তারিখ ঠিক করুন, যেদিন আপনি সম্পূর্ণভাবে ধূমপান (Smoking) ছাড়তে চান। সে তারিখের উপর নিজের স্বাক্ষর এবং একজন সাক্ষীর স্বাক্ষর রাখুন।

কেন ছাড়তে চাচ্ছেন এ অভ্যাস? তার পুঙ্খানুপুঙ্খ এবং মৌলিক কারণ লিপিবদ্ধ করুন। আগে যেমন এক প্যাকেট সিগারেট একত্রে কিনতেন, এখন আর সেভাবে কিনবেন না। বড়জোর একটি বা দুইটি কিনে চকলেটের বাক্সে লুকিয়ে রাখুন যেন হঠাৎ দরকারে খুঁজে না পাওয়া যায়।

যখনই আপনার ধূমপান (Smoking) করতে মন চাইবে, সে সময় করার মতন কিছু কাজের তালিকা তৈরি করে রাখুন। যেমন- হাঁটতে যাওয়া, ঘর পরিষ্কার করা, চুইংগাম খাওয়া ইত্যাদি।

যখন খুব ভালো বোধ করবেন আপনি কিংবা মন ভাল থাকবে ঠিক সে সময় থেকে ধূমপান (Smoking) করা বন্ধ করে দিন।তারিখ কাছাকাছি চলে আসলে ধূমপান (Smoking) করার যাবতীয় সরঞ্জাম যেমন দেয়াশলাই, সিগারেট, সিগারেটের প্যাকেট ফেলে দিন। ধূমপান (Smoking) করতে আপনার যে পরিমাণ অর্থ খরচ হতো, সেগুলো একটি বক্সে জমানো শুরু করুন।

সিগারেট ছাড়ার পাশাপাশি ক্যাফেইন-মুক্ত থাকুন কিছুদিন। তা না হলে সিগারেটের নেশা ফেরত চলে আসবে। এ সময়টা বেশ কষ্টকর হবে আপনার জন্যে অতিবাহিত করতে। অতীতের বেশ কিছু দুঃসাধ্য সময়ের কথা ভাবুন। সে সময়টা থেকে কিভাবে উঠে এসেছেন, সেটি মনে করার চেষ্টা করুন।

স্বাস্থ্যকর কোন শুকনো খাবার নিজের সঙ্গে রাখুন সব সময়। সেটি হতে পারে বাদাম, সূর্যমুখী বীজ কিংবা চুইংগাম। যখনই সিগারেটের নেশা প্রচণ্ডভাবে মনে পড়বে তখন এক কাপ ভেষজ চা পান করুন। সেটি হতে পারে সবুজ চা, পুদিনা চা কিংবা তুলসী চা।

কর্মক্ষেত্রে ধূমপানের (Smoking) জন্য যে বিরতি নিতেন, সে সময় এবার কম্পিউটারে গেইম খেলায় ব্যয় করতে পারেন। ধূমপান মুক্ত পরিবেশ সৃষ্টি করতে পারেন যেখানে কোনভাবেই ধূমপানের (Smoking) অনুমতি নেই। সে জায়গা হতে পারে আপনার বাসা, অফিসের ডেস্ক কিংবা গাড়ি।

সর্বোপরি, নিজের সম্পূর্ণ রুটিনে পরিবর্তন আনুন। নিজেকে সময় দিন নিবিড়ভাবে, হাঁটতে বের হোন, লেখালিখি করুন কিংবা অন্যকাজে নিজাকে ব্যাস্ত রাখুন। এভাবে ধীরে ধীরে কিছুদিনের মধ্যেই ধূমপানের (Smoking) মতন বদভ্যাস দূর হয়ে যাবে আপনার।

Check Also

যৌ’ন দু’র্বলতা কা’টানোর এগারো উপায়, ঝ’ড় তুলুন বিছানায়

এককালে, বেডরুমের সমস্যা বেডরুমেই সীমাবদ্ধ থাকত। আজকাল ওষুধের ব্যবসা, চিকিৎসার অগ্রগতি এবং বিশেষজ্ঞদের গবেষণার ফলে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *