র’ক্তচোষা ছারপোকা থেকে বাঁচতে যা ক’রবেন!

র'ক্তচোষা ছারপোকা থেকে রেহাই পেতে হলে পরিস্কার পরিচ্ছন্ন থাকার কোনো বিকল্প নেই। বিছানা, বালিশ, মশারি, সোফা এদের পছন্দের আবাসস্থল। পুরোপুরি নিশাচর না হলেও ছারপোকা সাধারণত রাতেই অধিক সক্রিয় থাকে এবং মানুষের অগোচরে র'ক্ত চু'ষে নেয়। ছারপোকার হাত থেকে বাঁচতে করণীয়:-

১. ঘরের যে স্থানে ছারপোকার বাস সেখানে ল্যাভেন্ডার অয়েল স্প্রে করুন। দুই থেকে তিন দিন ল্যাভেন্ডার অয়েল স্প্রে করলে ছারপোকা আপনার ঘর ছেড়ে পালা

২. ছারমোকা মারা যায় ১১৩ ডিগ্রি তাপমাত্রাতে। ঘরে ছারপোকার আধিক্য বেশি হলে বিছানার চাদর, বালিশের কভার, কাঁথা ও ঘরের ছারপোকা আক্রান্ত জায়গাগুলোর কাপড় বেশি তাপে সেদ্ধ করে ধুয়ে ফেলুন।

৩. ছারপোকা তাড়াতে মাঝে মধ্যে আসবাবপত্রে কেরোসিনের প্রলেপ দিন। এতে ছারপোকা সহজেই পালাবে।
৪. ছারপোকা তাড়াতে ন্যাপথলিন খুবই কার্যকারী পোকাটি তাড়াতে অন্তত মাসে দুবার ন্যাপথলিন গুঁড়ো করে বিছানাসহ উপদ্রবপ্রবণ স্থানে ছিটিয়ে দিয়ে রাখুন। ঘরে ছারপোকা হবে না।

৫. ছারপোকা তাড়াতে অ্যালকোহল ব্যবহার করতে পারেন। ছারপোকাপ্রবণ জায়গায় সামান্য অ্যালকোহল স্প্রে করে করলে ছারপোকা মরে যাবে।

৬. আসবাবপত্র ও লেপ-তোশক পরিষ্কার রাখার সঙ্গে সঙ্গে নিয়মিত রোদে দিন। এতে করে ছারপোকার আক্রমণ কমে যাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ছারপোকা থাকলে সেগুলো মারা যাবে।

ঘরোয়া তিন খাবারেই ফুসফুস থাকবে পরিষ্কার

র’তিদিনের কিছু ভু’ল অ’ভ্যাসের কারণে আমাদের ফুসফুস ন’ষ্ট হতে থাকে। তাছা’ড়া যাদের ধূমপানের অ’ভ্যাস রয়েছে, তাদের ফুসফুস ন’ষ্ট হয়ে যাওয়ার ঝুঁ’কি স’ব থেকে বেশি। ধূমপান ফুসফুসকে ভীষণভাবে ক্ষ’তিগ্রস্ত করে। ধূমপানের কারণে ফুসফুসে বি’ষাক্ত প’দার্থ জমা হয়। এর ফলে ফুসফুস ক্ষ’তিগ্রস্ত হয়ে ক্যানসারও হতে

পারে। তবে এমন কিছু খাবার আ’ছে, যা ফুসফুস প’রিষ্কা’র রাখতে সাহায্য করে। চলুন জেনে নেয়া যাক সেগুলো- আ’দা প্র’তিদিনের রান্নায় আম’রা অনেকেই আ’দা ব্যবহার করি। অনেকেই আবার আ’দা দিয়ে চা বানিয়েও পান করেন। ঘ’রোয়া দাওয়াই হিসেবে আ’দা বেশ প’রিচিত। এটি শ্বা’সতন্ত্রের ক্ষ’তিকর প’দার্থ ন’ষ্ট করতে সাহায্য করে। প্র’তিদিন সকালে এক টুকরো আ’দা চিবি’য়ে খেলে ফুসফুস থেকে ক্ষ’তিকর প’দার্থ সরে যাবে। ফলে ফুসফুস প’রিষ্কা’র থাকবে।

লেবু লেবুর অনেক ওষুধি গুণ রয়েছে। কুসুম গরম পানিতে সামা’ন্য লবণ ও লেবু মিশিয়ে নিয়’মিত পান করলে ফুসফুস প’রিষ্কা’রে ভা’লো ফলাফল পাওয়া যায়। এছা’ড়া লেবু ওজ’ন কমাতেও বেশ স’হায়ক। গ্রিন টি নিয়’মিত চা পানের অ’ভ্যাস অনেকেরই থাকে। তবে তা দুধ চা না হয়ে গ্রিন টি হলে স’ব চেয়ে বেশি উপকারী। এটি দে’হের নানান রো’গ থেকে মুক্তি দেয়। এমনকি ফুসফুস প’রিষ্কা’র রাখতেও স’হায়তা করে। তাই স’বুজ চা খাওয়ার অ’ভ্যাস গড়ে তুলুন।

Check Also

বউ সাজলে আমাকে কেমন লাগবে সেটা বুঝে ফেলেছি, বিয়ে করতে মন চাচ্ছে না: দীঘি

প্রার্থনা ফারদিন দীঘি। অভিনেত্রী। সম্প্রতি ওটিটিতে মুক্তি পেয়েছে তাঁর অভিনীত ওয়েব ছবি ‘শেষ চিঠি’। ওয়েব …

Leave a Reply

Your email address will not be published.