Breaking News

পোশাকও ঢাকতে পারেনি শরীর, বিতর্কের মুখে সোনাক্ষী

বলিউডের প’র্দায় অ’ভিষেকের প’র থেকে নিজের নামের সা’থে এখন প’র্যন্ত সুবি’চার করতে পারেন নি শত্রুঘ্ন ক’ন্যা সোনাক্ষী সিনহা। তবে নিজের রক্ষনশীল মনোভাবের জ’ন্যে ভক্ত’দের কাছে প্রিয় ছিলেন এই তারকা।

স’ম্প্র’তি ব্যাক্তিগত ই’নস্টাগ্রাম এ’কাউন্টে একটি লাল রঙ্গের নেটে’র গাউন পড়া ছবি প্রকাশ করেন সোনাক্ষী। ছবিটিতে সোনাক্ষীর শারী’রিক অবয়ব ফুটে উঠেছে। আর তাতেই তাকে নিয়ে হামলে পড়েছেন তার ভক্তরা।

বলিউডে সোনাক্ষী সিনহার ক্যারিয়ারটা বেশ ভা’লোই যাচ্ছিল। কিন্তু হঠাৎ করেই এই দাবাং তারকার পেশাদার জায়গাটা অনেকটা উল্টো পথে চলতে থাকে।

কারণ স’মসা’ময়িক অনেকের বলিউড অবস্থান তার চেয়ে ভা’লো। এমনকি তার প’রে এসেও সোনাক্ষীর চেয়ে ব্যস্ত অ’ভিনেত্রী এখন অনেক রয়েছে। সোনাক্ষীর এই পিছিয়ে পড়ার কারণ হিসেবে তাকেই দায়ী করা যায়।

এদিকে স’র্বশেষ সোনাক্ষী অ’ভিনীত ইত্তেফাক ছবিটিও আশানুরূপ সাফল্য দেখাতে পারেনি বক্স অ’ফিসে। কেউ কেউ বলছেন হিট ছবি না দিতে পেরে এখন শ’রীর প্রদর্শন করে আলোচনায় থাকতে

বি’শ্বের স’বচেয়ে ক্ষুদ্রতম দেশ সীল্যান্ড, জ’নসংখ্যা ৫০ জ’ন

‘প্রিন্সিপা’লিটি অব সীল্যান্ড’-কে বলা হয়ে থাকে পৃথিবীর স’বচেয়ে ছোট দেশ। দেশটির অবস্থান নর্থ সী অ’ঞ্চ’লে এবং এটি যু’ক্তরা’জ্যের সাফোল্ক থেকে ১২ কিলোমিটার দূরে স’মুদ্রের ও’প’র। সীল্যান্ডের রা’জধানী এইচ এম ফোর্ট রুঘশ, এটি মূলত দ্বি’তীয় বি’শ্বযুদ্ধ স’ময়কালের একটি নৌঘাঁটি।

নৌদু’র্গটি দু’টি ফাঁপা গোলাকৃতির লম্বা পি’লারের ও’প’র নৌকাসদৃশ পা’টাতনের ও’প’র অবস্থিত। দ্বি’তীয় বি’শ্বযু’দ্ধের স’ময় জার্মা’ন নৌবা’হিনীকে প্র’তিহত করার জ’ন্যই এইচ এম ফোর্ট রুঘশ নৌঘাঁটি স্থাপন করা হয়েছিল।

সেস’ময় এখানে ১৫০ থেকে ৩০০ সৈন্য থাকার ব্য’বস্থা ছিল। পি’লারের ভেতরের বিভিন্ন তলায় মজুত করা হতো অ’স্ত্রশস্ত্র। দ্বি’তীয় বি’শ্বযুদ্ধ শেষ হলে অন্যান্য অসংখ্য দু’র্গের স’ঙ্গে ব্রি’টিশ সেনাবা’হিনী এই দু’র্গটিকেও প’রিত্যক্ত ঘোষণা করে।

১৯৬৭ সালের ২ সেপ্টেম্বর ব্রি’টিশ নাগরিক মেজর প্যাডি রয় বেটস এবং তাঁর প’রিবার এই দ্বীপের স্বত্বাধিকারী হন। তাঁরাই সীল্যান্ডকে স’র্বপ্রথম স্বা’ধীন দেশ হিসেবে ঘোষণা করেন। রয় বেটস দেশটির প্রথম রা’জা এবং শাসক। ২০১২ সালে রয় বেটস মা’রা যাওয়ার প’র তাঁর পুত্র মাইকেল দেশটির শাসনভার গ্রহণ করেন।

সাংবি’ধানিক রা’জতন্ত্রে প’রিচালিত সীল্যান্ডের নিজস্ব সংবি’ধান, পতাকা এবং মুদ্রা রয়েছে। সীল্যান্ডের মুদ্রার নাম সীল্যান্ড ড’লার। পুরোপুরি বস’বাসযোগ্য দেশটির আয়তন মাত্র ০.০২৫ কিলোমিটার।

মজার ব্যা’পার হচ্ছে দেশটির জ’নসংখ্যা মাত্র ৫০ জ’ন। পৃথিবীর কো’নো দেশ কিংবা আন্তর্জাতিক কো’নো সংগঠন কো’নোরকম স্বীকৃতি না দিলেও কেউ তাদের বি’রো’ধিতাও করেনি। এ কারণে সীল্যান্ড নিজেদেরকে একটি স্বয়ংস’ম্পূর্ণ দেশ বা মাইক্রোনেশন হিসেবেই দা’বি করে।

Check Also

বরগুনায় বাবার অনৈতিক প্রস্তাবে রাজি না হওয়ায় মা-মেয়েকে মারধর

বরগুনার আমতলীতে সাকিব খান নামে এক মাদকসেবী যুবকের সঙ্গে কথা বলতে রাজি না হওয়ায় মা-মেয়েকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published.