সন্তানের মুখ দেখার আগেই চলে গেলেন শান্ত

সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী মেহেদী হাসান শান্ত। তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের ফলিত পরিসংখ্যান বিভাগের ২০১৪-১৫ সেশনের ছাত্র ছিলেন। এছাড়া ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের উপ পাঠাগার বিষয়ক সম্পাদকও ছিলেন তিনি। শনিবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে ঢাকার কেরানীগঞ্জে মোটর সাইকেল দু’র্ঘ’ট’না’য় নি”হ”ত হন শান্ত।

জানা গেছে, এক বছর আগে ঢাবির বোটানি বিভাগের শিক্ষার্থী তাসফিজা সিনথীকে বিয়ে করেছিলেন শান্ত। শান্তর স্ত্রী বর্তমানে সন্তান সম্ভবা। ২০১৯ সালের ১২ ডিসেম্বর বিয়ে করেন তিনি। দু’মাস আগেই প্রথম বিবাহবার্ষীকি উদযাপন করেছেন এই দম্পতি।

মেহেদী হাসান শান্তর বন্ধু ও শহীদুল্লাহ হলের আবাসিক শিক্ষার্থী লায়েল বলেন, বিকেলে স্থানীয় এক বন্ধুর সঙ্গে ঘুরতে বেড়িয়েছিলেন শান্ত। মোটরসাইকেলের পেছনে বসা ছিলেন তিনি। তার মাথায় কোনো হেলমেট ছিল না। সামনের দিক থেকে আসা একটি মাইক্রোবাসের সঙ্গে মুখোমুখি সং’ঘ’র্ষ হলে ঘটনাস্থলেই শান্তর মৃ’ত্যু হয়।

এদিকে শান্তর মৃ’ত্যু’র ঘটনায় শোক জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ। শনিবার রাতে ঢাবি ছাত্রলীগের সভাপতি সনজিত চন্দ্র দাস ও সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে নিহতের পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করেন তারা।

Check Also

যে কারণে উধাও হলো বগুড়ার সেই পুকুরের মাছ-পানি

দীর্ঘ বছরের পুরোনা পুকুর। হঠাৎ কী এমন হলো যে নিমিষেই পানি ও মাছ শূন্য হয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *