যেসব পোশাকে বাড়ছে রোগ-বালাই

পোশাক শুধুই মৌলিক চাহিদা নয়; আমাদের ফ্যাশন, আভিজাত্য ও সামাজিক অবস্থা সবকিছুর পথনির্দেশ করে। তবে পোশাক নির্বাচন ও পরিধানের ক্ষেত্রেও সাবধান থাকা উচিত। কারণ পোশাক থেকেই শরীরে অনেক রোগ বাসা বাঁধতে পারে।

* স্কিন টাইট জিনস প্যান্ট নিতম্ব ও হাঁটুর স্বাভাবিক নড়াচড়া ব্যাহত করে। এর প্রভাব দেখা দেয় পুরো শরীরে। ব্যাকপেইন বা পিঠে ব্যথা এবং ঘাড়ে ব্যথার জন্য এ ধরণের প্যান্ট অনেকটাই দায়ি।

* মোজা, ব্রেসিয়ার বা অন্যান্য অন্তর্বাসে স্প্যান্ডেক্স নামে এক ধরনের পলিইউরেথেন ফাইবার থাকে। এর থেকে ত্বকে র‍্যাশ হয়ে চুলকে সংক্রমণ হয়ে যেতে পারে।

* বিভিন্ন কৃত্রিম রং ও পোশাকের কাপড়ে ব্যবহৃত নানা রাসায়ানিক যেমন- অ্যাফ্রাইলিক, ওরিয়ন, পলিভিনাইল রেজিন ইত্যাদি অনেকের ত্বকের জন্যে বেশ ক্ষতিকর।

* কোমরের দিকে সংকুচিত পোশাকগুলো অনেক ক্ষতিকর হতে পারে। পেটে, পিঠে ও কোমরে চাপ পড়ার কারণে হৃদপিণ্ড ক্ষতিগ্রস্ত হয়। অ্যাসিডিটি ও বমিভাব হয়। ত্বকের ক্ষতি তো আছেই।

* পোশাক বেশি পুরনো হয়ে গেলে তা কখনোই পরা ঠিক নয়। এতে বেশিমাত্রায় ব্যাকটেরিয়া, ভাইরাস এবং ফাঙ্গাস থাকে। ফলে শরীরে রোগ ছড়াতে পারে।

Check Also

পরকীয়া কি সামাজিক নাকি মানসিক রোগ?

পরকীয়া একটি সুন্দর সংসার ও সমাজকে ছারখার করে দিচ্ছে। পরকীয়ার কবলে পড়ে ধ্বংস হচ্ছে সংসার, …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *